সুখী বিবাহের রহস্য

Updated: Nov 19, 2020

বিয়ের শুরুতে হলুদের প্রোগ্রাম, বিয়ের প্রোগ্রাম এই ধরনের প্রোগ্রামে অনেক মজা হয়. কিন্তু, বিয়ের জীবনটা অনেক প্রোগ্রাম দিয়ে শুরু হলেও একটা সুন্দর বিবাহিত জীবন কাটানোর জন্য অনেক সেক্রিফাইস এর প্রয়োজন।বিয়ে বলতেই যে সবসময় মধুর সম্পর্ক যাবে তা নয়, একটা সুন্দর বিবাহিত জীবনে অনেক ভালো এবং খারাপ সময় দিয়ে অতিবাহিত করতে হয়। একটা জিনিস সর্বদাই মাথায় রাখবেন যে, কোন বিবাহিত জীবনই পারফেক্ট নয়, তবে অনেক পরিশ্রম এবং প্রচেষ্টার মাধ্যমে খুবই সুন্দর বিবাহিত জীবন গড়ে তোলা সম্ভব।এর জন্য প্রয়োজন কিছুটা ধৈর্য, একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা,এবং একে অপরের প্রতি ভালোবাসা। একটা বিবাহিত জীবনে ঝগড়া হবে না, তেমন কোন কথা নেই তবে খেয়াল রাখতে হবে ঝগড়ার সময় যেনো কথা দিয়ে একে অপরকে খুব বেশি কষ্ট না দেয়া হয় এবং একে অপরকে বোঝার এবং শোনার চেষ্টা করতে হবে

বিবাহিত জীবনে কিভাবে নিজেকে সুখী রাখা যায় তা নিয়েই আজকের প্রতিবেদন



আপনার সঙ্গীর মানসিক অবস্থার খোঁজখবর রাখা:

অসুস্থের সময় পাশে থাকা

যদি আপনার মনে হয় আপনার সঙ্গীর কোন সমস্যা হয়েছে,তাহলে তার পাশে থাকুন এবং কি হয়েছে জিজ্ঞাসা করুন-এই সময়ে হয়তো আপনার যত্ন তার সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। এই সুযোগটা অবহেলা করবেন না।যদি আপনার সঙ্গী কথা বলার জন্য প্রস্তুত না থাকে,তাহলে তাকে জোর করবেন না এবং ব্যাপারটাকে আরো জটিল করবেন না।আপনার তাকে বুঝানো উচিত যে,আপনি সবসময় তার পাশে আছেন এবং যখন সে সবকিছু বলতে চাইবে আপনাকে বলতে পারবে।

যদি আপনার সঙ্গী আপনার সাথে কোন সামাজিক অনুষ্ঠানে যায় এবং আপনি খেয়াল করেন যে,আপনার সঙ্গীর কোন একটা বিষয় ঠিক হয় নি,তাহলে সবার সামনে তাকে সেটা বলবেন না।তাকে আলাদাভাবে একপাশে নিয়ে গিয়ে বিষয়টা বলার চেষ্টা করবেন।


প্রশংসা করা:

আপনার সঙ্গী প্রতিদিন যেসব কাজ করে,আপনি সেগুলোর কতটা মূল্য দিন তাকে সেটা জানান। আপনার সঙ্গীকে বলুন যে,আপনি সত্যিই তাকে ভালবাসেন এবং তার প্রশংসা করুন।আপনাকে সে যেসব সাহায্য করে সেজন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করুন।অবশ্যই,আপনিও এমন কিছু করবেন যাতে আপনার সঙ্গীও প্রশংসা করেন।

আপনার সঙ্গী আপনার জন্য যা কিছু করেছে,যেমন-পোষা প্রাণীর দেখাশোনা থেকে শুরু করে যখন আপনি অসুস্থ ছিলেন আপনার জন্য সুন্দর জন্মদিনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা-এসবকিছুর জন্য তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে একটি ভালবাসার পত্র লিখতে পারেন।


একে অপরকে সারপ্রাইজ দেওয়া:

একে অপরকে সারপ্রাইজ দেওয়া:

এটা সময়কে আরো সুন্দর করে তোলে।উপহার খুব বেশি দামি বা মূল্যবান হওয়ার প্রয়োজন নেই।একটা ছোট কোন উপহারও আন্তরিক এবং সুন্দর স্মৃতি তৈরি করতে পারে যা অনেকদিন পর্যন্ত মনে থাকে।আপনার সঙ্গীর প্রতি মনোযোগী হন এবং তাকে সারপ্রাইজ দিন যাতে তার মন আনন্দ এবং ভালবাসায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

যদি বিশেষ দিন হয়,যেমন:জন্মদিন অথবা বিবাহ বার্ষিকী-এগুলো উপহার দেওয়ার জন্য উপযুক্ত সময় হতে পারে।

স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে সাহায্য করা:

একে অপরকে সাহায্য করা

যদি আপনার স্ত্রী একটি ব্যস্ত সপ্তাহ পার করে,তাহলে আপনার সেটা বোঝা উচিত এবং রান্না অথবা ঘরের কাজে তাকে সাহায্য করা উচিত।যখন আপনি ব্যস্ত সময় পার করবেন, তারও একই কাজ করা উচিত।কাজের মধ্যে সমতা থাকা উচিত যা উভয়ের জন্যই ভাল।যদি আপনি আপনার সঙ্গীর যত্ন নেন,আপনার বাড়তি চেষ্টা করা উচিত যখন সত্যিই আপনাকে তার সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন।


আপনার স্ত্রী বাড়তি সাহায্য নিতে অস্বীকার করতে পারে,কিন্তু যদি আপনি দেখেন সে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত এবং ক্লান্ত,তাহলে রান্নার কাজে তাকে সাহায্য করুন।

একে অপরের বন্ধু ও পরিবারের সাথে যুক্ত থাকা:


যদি আপনি এবং আপনার সঙ্গী সম্পর্কের ক্ষেত্রে সামনের দিকে অগ্রসর হতে চান,তাহলে আপনার পরিবার এবং বন্ধুদের আপনার বিয়েতে এবং জীবনযাপনে যুক্ত করা গুরুত্বপূর্ণ।এটা আপনার বিয়েকে আরো বেশি নিরাপদ ও দৃঢ় অনুভব করতে সহায়তা করবে এবং যখন আপনার সমর্থন বা সাহায্যের প্রয়োজন হবে তখন আপনি সেটা পাবেন।

*যদি আপনি আপনার সঙ্গীকে ভালবাসেন,তাহলে তার পরিবার এবং বন্ধুদেরও ভালবাসার চেষ্টা করুন।তাদেরকে বোঝার চেষ্টা করুন এবং তাদের সাথে ভাল সম্পর্ক তৈরি করুন।আপনার সঙ্গীর পরিবারকে নিজের পরিবারের অংশ মনে করুন এবং তাদের সাথে ভাল আচরণ করুন,দৃঢ় সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করুন।


বাস্তবধর্মী প্রত্যাশা রাখা:


যদি আপনি একটি সুখী বিবাহিত জীবন চান,তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে প্রতিদিন পার্কে ঘোরা সম্ভব নয়।কিন্তু এটা দ্বারা আপনার বিবাহিত জীবন একঘেয়েমি,বিষণ্ণ,হতাশাপূর্ণ বোঝায় না।এটা বোঝায় যে,আপনাকে সহনশীল হতে হবে,সবসময় সুখের সময় যাবে না,মাঝে মাঝে কঠিন সময় আসবে-এগুলোর জন্য আপনাকে তৈরি হতে হবে।


মনে রাখবেন যে,আপনার মত আপনার সঙ্গীরও ত্রুটি থাকতে পারে।যদি আপনি ভুল ছাড়া মানুষ আশা করেন,তাহলে দু:খ এবং নিরাশ হবেন ।যদি আপনার সঙ্গীর কোন ত্রুটি থাকে, এই বিষয়ে একটা আন্তরিক ও খোলাখুলি আলোচনা করুন।


প্রথম পর্ব আর্টক্যাপড়তে চাইলে।






আমাদের আর্টিকেল ভালো লাগলে, দোয়া করে শেয়ার দিন এবং আমাদের পেজ এ লাইক দিন যেন প্রতিনিয়ত আর্টিকেল দেখতে পারেন।

https://www.facebook.com/5minssolution/





271 views0 comments

5-MinsSolution

Contact us

Tel: +8801713221592

Dhaka, Bangladesh

  • Facebook

Follow us on Facebook